আল আকসা মসজিদ রক্ষায় ইসরায়েলকে ফিলিস্তিনি নেতার হুঁশিয়ারি

আল আকসা মসজিদ আক্রমণের প্রতিবাদে ইসরায়েলকে কঠোর ভাষায় হুঁশিয়ার করেন ফিলিস্তিনি নেতা শায়খ রায়েদ সালাহ।

গতকাল রবিবার (৯ আগস্ট) তুরস্কের জেরুজালেম কমিশন অব দি আঙ্কারা সিভিল সোসাইটি প্লাটফর্ম (এসিএসপি)-এর উদ্যোগে আয়োজিত অনলাইল অনুষ্ঠানে ইসলামিক মুভমেন্ট ইন ইসরাইলের প্রধান এ প্রতিবাদ জানান।

শায়খ সালাহ জানান, ১৯৬৭ সালের জুন থেকে ইসরাইল জেরুজালেমের পবিত্র আকসা মসজিদ দখলের পরিকল্পনা করেছে। তখন তাঁরা প্রথম বারের মতো মসজিদ আকসায় আক্রমণ করেছিল।

এর আগে তাঁরা আল আকাসার পাশের মাগারাবি এলাকা ধ্বংস করেছিল। অতঃপর ১৯৬৯ সালে তাঁরা আল আকসা মসজিদে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল।

মুসলিম তরুণদের উদ্দেশ্যে শায়খ সালাহ বলেন, জেরুজালেমের আকসা মসজিদের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে মুসলিম তরুণদের ব্যাপক পাঠ ও জানশোনার জরুরি। নতুবা ইসরাইলের দখলদারিত্ব থেকে তা রক্ষা যাবে না।

তিনি বলেন, মসজিদ আকাসাকে রক্ষার জন্য ইসরাইলের দখলদার রোধ করতে হবে। দখলদারিত্বের মাধ্যমে তাঁরা আকসায় আগতদের ওপর আক্রমণ চালাচ্ছে। আকসা মসজিদের ওপর তাঁরা নিজেদের উপাসনার ঘর ‘হাইকাল’ তৈরির চেষ্টা করছে।

তিনি আরো বলেন, গত নব্বইয়ের দশকে অনেকে সঙ্গে মিলে নিজস্ব উদ্যোগে তিনি ফিলিস্তিনের ধর্মীয় স্থাপনাগুলো সংরক্ষণের জন্য কাজ শুরু করেছিলেন। ফিলিস্তিনবাসী বিশেষত জেরুজালেমবাসীর ত্যাগ অবিস্মরনীয়। আকসা মসজিদ রক্ষায় তুরস্ক ও মালয়েশিয়ার ভূমিকাও প্রশংসনীয়।

উল্লেখ্য, শায়খ রায়েদ সালাহ বর্তমানে নিজ বাসায় গৃহবন্দী আছেন। নিকটাত্মীয় ছাড়া কারো সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন না তিনি। ইতিমধ্যে আগামী ১৬ আগস্ট থেকে ইসরাইলের আদালত তাঁকে ২৮ মাসের জেল দেয়। ২০১৫ সালের ২৭ নভেম্বর তাঁর দলকে ইসরাইলে নিষিদ্ধ করা হয়।