আফগান নাগরিকদের অন্ধকারে রেখে পালিয়েছেন তিনি

আফগানিস্তানের পদত্যাগী প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির দেশ থেকে পালিয়ে তাজিকিস্তানে চলে যাওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন দেশটির বহু মানুষ। তারা বলেছেন, দেশ এবং দেশের প্রতি ভালোবাসার অভাবে তিনি এ কাজ করতে পেরেছেন।

গতকাল (রোববার) তালেবান যোদ্ধারা আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখল করার আগ মুহূর্তে প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি পদত্যাগ করেন এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট আমরুল্লাহকে নিয়ে প্রতিবেশী তাজিকিস্তানে পালিয়ে যান।

এ সম্পর্কে আফগান হাই কাউন্সিল ফর ন্যাশনাল রিকনসিলেশন-এর চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আবদুল্লাহ বলেন, “আফগানিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট দেশ ছেড়ে চলে গেছেন। তিনি দেশের জনগণকে এই অবস্থায় ফেলেছেন, ইনশাল্লাহ তার বিচার হবে।

আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় একটি প্রদেশের শীর্ষ পর্যায়ের একজন রাজনৈতিক নেতা আল-জাজিরাকে বলেছেন, “দেশ থেকে আশরাফ গনির চলে যাওয়া অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা। তিনি বড় দুঃসময়ে আফগান জনগণকে অন্ধকারে ফেলে চলে গেছেন।

আশরাফ গনি গতকাল দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য যে বক্তব্য দিয়েছিলেন সেটি তার মিথ্যা বলার একটি উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরেন ওই রাজনৈতিক নেতা। আশরাফ গনির রেকর্ডকৃত এই বক্তব্য প্রচারের কিছুক্ষণ পর রাজধানী কাবুলের পতন হয় এবং তিনি দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান।

আফগানিস্তানের ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের সাবেক একজন সদস্য বলেছেন, “আশরাফ গনি দেশ ছেড়ে চলে যাবেন এটি বোঝা যাচ্ছিল কিন্তু এতটা দ্রুত তিনি চলে যাবেন সেটি অবিশ্বাস্য এবং হতাশাজনক।

আশরাফ গনি রেকর্ড করে বক্তব্য গতকাল প্রচার করেছেন এবং টেলিভিশনের পর্দায় সরাসরি আসেন নি। একে দুঃখজনক এবং দেশপ্রেমীহীনতা বলে উল্লেখ করেন ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের সাবেক ওই সদস্য। দেশের ভিতরে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি এবং জনগণকে বিভক্ত করার জন্য তিনি গনিকে দায়ী করেন।

আশরাফ গনির দেশ থেকে পলায়নের ব্যাপারে একজন নারী মানবাধিকার নেত্রী বলেছেন, “গনি চলে গেছেন কিন্তু তিন কোটি ৮০ লাখ আফগান নাগরিককে ফেলে গেছেন। সাবেক একজন আফগান রাষ্ট্রদূত বলেছেন, “ইতিহাস আশরাফ গনি বিনয়ের সঙ্গে স্মরণ করবে না।

সূত্রঃ পার্সটুডে