আফগানিস্তানের কুনদুজ প্রদেশে এক সপ্তাহে তালেবান হামলায় নিহত ২৯

আফগানিস্তানের কুনদুজ প্রদেশে তালেবানের হামলায় গত এক সপ্তাহে অন্তত ২৯ বেসামরিক মানুষ নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো অন্তত ২২৫ জন। যদিও প্রাদেশিক প্রশাসনের দাবি, গত তিন দিন ধরে অনেকটা কমে এসেছে সহিংসতা।

কুনদুজ প্রশাসনের দাবি, প্রদেশের ৯টি জেলার মধ্যে অধিকাংশই এখন তাদের নিয়ন্ত্রণে। গতকাল শনিবার তালেবানের দখলে থাকা দুটি জেলা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে প্রশাসন। এ ছাড়া গত শুক্রবার পুনর্দখল করা হয়েছে আরো ছয়টি জেলা। যদিও তালেবান বলছে এখনো প্রদেশটির কেন্দ্রের চারটি জেলা তাদের দখলে রয়েছে।

হতাহতের শিকার কুনদুজের অধিবাসী তালেব বলেন, তাদের বাড়িতে একটি মর্টার শেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। যাতে নিহত হয়েছেন তার বাবা। কুনদুজ জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, তালেবানের সঙ্গে আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশটির নারী ও শিশুরা।

যাদের বেশির ভাগই সাধারণ মানুষ। আফগানিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দাবি, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটির মোট ১০টি প্রদেশে ২২৫ জন তালেবান নিহত হয়েছে। যদিও তালেবানের পক্ষ থেকে নিজেদের হতাহতের বিষয়ে কিছু বলা হয়নি।

গতকাল শনিবার রাতে পারওয়ান প্রদেশে তালেবানকে লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালিয়েছে আফগানিস্তান প্রশাসন। যাতে কমপক্ষে ২০ জন তালেবান নিহত হয়েছে বলে দাবি করছেন পারওয়ানের গভর্নর ফজলুদ্দিন আয়ার সাইদ। দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রুহুল্লা আহমাদজাই বলেন, আফগানিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা সাহসের সঙ্গে তালেবানের সঙ্গে লড়াই করে যাচ্ছেন। যাতে পিছু হঠতে শুরু করেছে তালেবান সন্ত্রাসীরা। গত দুই মাসে আফগানিস্তানের কমপক্ষে ১শ’টি জেলা দখলে নেয় তালেবান। যা উদ্ধারে লড়াই করছে নিরাপত্তা বাহিনী।

এদিকে ২৫ জুন আফগানিস্তানে তালেবানকে লক্ষ্য করে ফের দুটি ড্রোন হামলা চালিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। শুক্রবার হোয়াইট হাউসে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির সঙ্গে জো বাইডেনের বৈঠকের কিছুক্ষণ আগে এ হামলা চালায় তারা। দেশটির সার্বিক পরিস্থতি নিয়ে ২৫ জুন বাইডেনের সঙ্গে বৈঠক করেন আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি ও জাতীয় ঐকমত্যের জন্য গঠিত শীর্ষ কাউন্সিলের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ।

বৈঠক শেষে জো বাইডেন জানিয়েছেন, আফগানিস্তান থেকে সৈন্য প্রত্যাহার করা হলেও দেশটিতে সহায়তা অব্যাহত রাখবে যুক্তরাষ্ট্র। বাইডেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্র এবং আফগানিস্তানের মধ্যকার অংশীদারি শেষ হচ্ছে না। এটি স্থায়ী হতে চলেছে। আপনারা জানেন, আমাদের সৈন্যরা আফগানিস্তান ছেড়ে আসছে, তবে আমাদের সহযোগিতা শেষ হচ্ছে না।

চলতি বছরের ১ মে থেকে আফগানিস্তান থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে সেনা প্রত্যাহার শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির দাবি, এখন পর্যন্ত নিজেদের ৫০ শতাংশের বেশি সেনা প্রত্যাহার করা হয়েছে। আগামী ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাকি সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

সূত্র : তোলো নিউজ