`আদালত অবমাননার সাজা এক টাকা, অনাদায়ে তিন মাসের জেল!’

আদালত অবমাননার দায়ে ভারতের এক আইনজীবীকে এক টাকা জরিমানা করেছে দেশটির উচ্চ আদালত। বলা হয়েছে, ওই টাকা সময় মতো পরিশোধ করা না হলে তিন মাসের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে অভিযুক্তকে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতের আইনজীবী ও সমাজকর্মী প্রশান্ত ভূষণকে এমন সাজা দেওয়া হয়েছে। তবে প্রশান্ত ভূষণ এখনও কোন সিদ্ধান্ত জানাননি।

সোমবার প্রধান বিচারপতি এসএ বোবদের বেঞ্চের দেওয়া ওই রায়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, আগামি ১৫ সেপ্টেম্বর মধ্যে এই জরিমানা পরিশোধ করা না হলে তিন মাস জেলে থাকতে হবে তাকে। সকর্তা জানিয়ে ভারতের সুপ্রিমকোর্ট বলেছে, কারোর বাকস্বাধীনতা মানে অন্যকে অপমান করা হয়।

এর প্রায় এক সপ্তাহ আগে আদালতের সঙ্গে বাকযুদ্ধে জড়িয়ে পড়েছিলেন তিনি। এরপর বিভিন্ন গণমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, প্রশান্ত ভূষণ তার অবস্থান থেকে সরে দাঁড়াবেন না। তিনি বলেন, আদালতের প্রতি করা মন্তব্য ফেরালে নিজের বিবেকের সঙ্গে অবমাননা করা হবে।

তবে শুনানিতে বিচারপতি অরুণ মিশ্রের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বেঞ্চ প্রশান্তকে বলেন, এজলাসে অন্তত আইনি সঙ্গত আচরণ করবেন। আমরা গত ২৪ বছর ধরে বিচারকের পথে। কিন্তু এভাবে কাউকে অবমাননার জন্য কাঠগড়ায় তুলিনি।

ওই শুনানির পর প্রশান্ত ভূষণকে তার বক্তব্য তুলে নিতে তিনদিন সময় দিয়েছিল আদালত। সেই সময়সীমার মধ্যে প্রশান্ত ভূষণ বলেছেন, আমি ধরতে পারি এটা মাই লর্ডের ইচ্ছা। কিন্তু তাতেও খুব একটা বদল হবে না। আমি মাই লর্ডের সময় নষ্ট করতে চাই না। আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলেই পরবর্তী পদক্ষেপ নেবো।

নিজের দেওয়া মন্তব্য নিয়ে প্রশান্ত ভূষণ বলেন, গণতন্ত্রের সুরক্ষা মর্যাদা রক্ষায় এই মন্তব্য সর্বসমক্ষে সমালোচনা হয়েছিল। ন্যায়ের রক্ষক হিসেবে এই কাজ করেছি।

তবে এনিয়ে বিচারপতি অরুণ মিশ্র বলেছেন, কেউ একটা ভালো কাজ করলেও, সমাজ তাকে দশটা খারাপ কাজ করার লাইসেন্স দেয় না।

সূত্র: এনডিটিভি