আজারবাইজানে আর্মেনীয় গোলাবর্ষণ বন্ধে এবার মাঠে যুক্তরাষ্ট্র

বিতর্কিত নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলে চলমান অস্ত্রবিরতির মধ্যে পরস্পরের বিরুদ্ধে হামলা অব্যাহত রেখেছে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান। কর্তৃপক্ষকে উদ্ধৃত করে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, বুধবারও (২১ অক্টোবর) সেখানে ব্যাপক গোলাগুলি হয়েছে।

এ দিকে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, সংঘাত নিরসনে রাশিয়ার পর এবার যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় আলোচনায় বসতে যাচ্ছে আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান।

নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের পুরনো সংঘাত গত ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে নতুন করে আবার শুরু হয়। এরই মধ্যে সংঘাতে কয়েকশ’ মানুষের প্রাণহানি হয়েছে। সংঘাত নিরসনে এখন পর্যন্ত মধ্যস্থতার চেষ্টা চালিয়ে এসেছে রাশিয়া। যদিও মস্কোর উদ্যোগে আর্মেনিয়া-আজারবাইজান দুটি অস্ত্রবিরতি চুক্তিতে পৌঁছার পরও লড়াই থামেনি।

আজারবাইজানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বিবাদপূর্ণ ওই এলাকা ছাড়াও বেশ কিছু এলাকায় সংঘাত হওয়ার কথা জানিয়েছে। নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলের জাতিগত আর্মেনীয় কর্মকর্তারাও মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) নতুন করে শেল হামলা হওয়ার দাবি করেছেন। তারা বলছেন, সংঘাতপূর্ণ অঞ্চলের দক্ষিণের এলাকাগুলোতে লড়াইয়ের মাত্রা বেড়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে এবার যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় আলোচনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান জানিয়েছে, তুমুল লড়াই অবসানের চেষ্টায় তাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) ওয়াশিংটনে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সঙ্গে আলোচনায় বসবেন।

দুই দেশের দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে পম্পেওর আলাদা বৈঠক করার কথা রয়েছে। তবে আর্মেনীয় এবং আজেরি পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে অপরের সঙ্গে পৃথক বৈঠক করবেন কিনা তা জানা যায়নি। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও এ বৈঠকের ব্যাপারে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো মন্তব্য করেনি।

সংঘাত নিরসনে প্রথম দফার অস্ত্রবিরতি ব্যর্থ হওয়ার পর রাশিয়ার মধ্যস্থতায় শনিবার (১৭ অক্টোবর) মধ্যরাত থেকে নতুন অস্ত্রবিরতি কার্যকরের কথা ছিল। তবে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান একে অপরের বিরুদ্ধে সেই যুদ্ধবিরতিও লঙ্ঘনের অভিযোগ এনেছে।