আইএইএ’র সঙ্গে নজরদারির চুক্তি নবায়ন করতে বাধ্য নই: ইরান

ইরান বলেছে, দেশটির পরমাণু স্থাপনাগুলোতে আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা বা আইএইএ’র নজরদারি অব্যাহত রাখার ব্যাপারে সাময়িক চুক্তির মেয়াদ নবায়ন করতে তেহরান বাধ্য নয়। ইরান আইএইএ’র সম্পূরক প্রটোকল বাস্তবায়ন বন্ধ করে দেয়ার পর ওই সাময়িক চুক্তি অনুযায়ী জাতিসংঘের ওই সংস্থাটি ইরানের পরমাণু স্থাপনাগুলোতে নজরদারি করে যাচ্ছিল। চুক্তিটির মেয়াদ দু’দিন আগে শেষ হয়ে গেছে।

আইএইএ’র মহাপরিচালক রাফায়েল গ্রোসি সংস্থাটির নির্বাহী বোর্ডকে জানিয়েছেন, তিনি ওই সাময়িক চুক্তি নবায়ন করার জন্য ইরানকে যে চিঠি দিয়েছিলেন মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়া সত্ত্বেও তার কোনো জবাব তেহরান দেয়নি।

চুক্তিটি নবায়ন করার জন্য তেহরানকে চিঠি দেয়ায় গ্রোসির সমালোচনা করেছেন আইএইএ’তে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি কাজেম গরিবাবাদি। তিনি বলেছেন, “ইরান যদি স্বেচ্ছায় তার পরমাণু স্থাপনাগুলোতে নজরদারি চালাতে দিয়ে থাকে তাহলে কোনো অবস্থায় সেটি নবায়ন করতে তেহরানকে বাধ্য করতে চাওয়া উচিত নয়।

ইরানের এই কূটনীতিক আরো বলেন, ভিয়েনায় পাশ্চাত্যের সঙ্গে ইরানের পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের আলোচনাকে সহায়তা করতে ইরান সাময়িক ওই চুক্তি করেছিল; কিন্তু তা নবায়ন করতে তেহরান বাধ্য নয়।

ইরানের পার্লামেন্টে পাস হওয়া এক আইন অনুযায়ী এদেশের আণবিক শক্তি সংস্থা গত ফেব্রুয়ারি মাসে আইএইএ’কে ইরানের পরমাণু স্থাপনাগুলোর ওপর নজরদারি করতে দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এ অবস্থায় আইএইএ’র মহাপরিচালক তেহরানে ছুটে আসেন এবং ইরানি কর্মকর্তাদেরকে অনুরোধ করে তিন মাসের জন্য একটি চুক্তি করেন।

মে মাসে ইরান ভিয়েনা আলোচনাকে ফলপ্রসূ করার সুযোগ দিতে চুক্তিটি আরেক মাসের জন্য নবায়ন করতে সম্মত হয়। কিন্তু এরমধ্যেও ভিয়েনা সংলাপ থেকে কোনো ফল বেরিয়ে না আসায় তেহরান এবার চুক্তিটি নবায়ন করেনি এবং এ ব্যাপারে আইএইএ’র পাশাপাশি পশ্চিমা দেশগুলো উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

সূত্রঃ পার্সটুডে