অসৎ উদ্দেশ্যে দ্বিতীয়বার ভোটার হন সাবরীনা

অসৎ উদ্দেশ্যে তথ্য গোপন করে ডা. সাবরীনা দ্বিতীয়বার ভোটার হওয়ার তথ্য পেয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তবে ওই ঘটনায় ইসির কেউ জড়িত নয়। ডা. সাবরীনা একজন প্রভাবশালীর রেফারেন্সে ভিন্ন ঠিকানার কাগজপত্র দিয়ে ভোটার হয়েছেন।

বুধবার এসব তথ্য উল্লেখ করে ইসির সিনিয়র সচিবের কাছে প্রতিবেদন দিয়েছে তদন্ত কমিটি। যদিও ওই রিপোর্ট গ্রহণ করেননি সচিব। আবারও রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। বুধবার দুপুরে এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর বলেন, তদন্ত কমিটির রিপোর্ট পাইনি। রিপোর্ট পাওয়ার পর বিস্তারিত বলতে পারব। তবে দুই জায়গায় ভোটার হওয়া অপরাধ।

জানা গেছে, ইসির তদন্তে দেখা গেছে, ২০০৯ সালে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার তালিকা করা হয়। তখন নিজ ঠিকানায় ভোটার হন ডা. সাবরীনা। পরে ২০১৬ সালে গুলশান থানা নির্বাচন অফিসে গিয়ে আবারও ভোটার হন তিনি।

তখন অনেক তথ্য গোপন করেন। জমা দেন অসত্য তথ্য। তবে প্রথমবার তার আঙুলের ছাপ অস্পষ্ট থাকায় দ্বিতীয়বার ভোটার হওয়ার সময়ে তাকে শনাক্ত করা যায়নি।